--- বিজ্ঞাপন ---

অনলাইনে উচ্চ শিক্ষা কার্যক্রম চালু করলো দক্ষিণ কোরিয়া দূতাবাস

বাংলাদেশী নাগরিকরা কাজের পাশাপাশি সহজে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করতে পারবেন

0
বিশেষ প্রতিনিধি, দক্ষিণ কোরিয়া থেকে ##
সিউলস্থ বাংলাদেশ দূতাবাস ও বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের যৌথ উদ্যোগে পরিচালিত দক্ষিণ কোরিয়ায় চালু হলো অনলাইনে উচ্চ শিক্ষার কার্যক্রম।  দক্ষিণ কোরিয়ায় অবস্থানরত বাংলাদেশী ইপিএস কর্মীদের জন্য অনলাইন বি.এ (পাস) কোর্স কার্যক্রমের রবিবার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়েছে। এ কার্যক্রমে ভিডিও বার্তায় বাংলাদেশ থেকে যোগ দেন পররাষ্ট্র মন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন। সফলতা কামনা করে লিখিত বার্তা পাঠান প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমেদ। দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্রদূত আবিদা ইসলাম সূচনা বক্তব্য রাখেন।

দীর্ঘদিন ধরে অনলাইনে উচ্চশিক্ষার জন্য কোরিয় দূতাবাস চেষ্টা চালিয়ে আসছে। করোনা পরিস্থিতির কারনে এ কার্যক্রম শুরু করা ছিল কঠিন। দক্ষিণ কোরিয়ায় কর্মরত রেমিটেন্স যোদ্ধাদের অনেকে উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হতে চান। কাজের পাশাপাশি শিক্ষাগত ক্ষেত্রে নিজেদের উন্নত করার লক্ষে দূতাবাসকে অনলাইনে কার্যক্রম শুরু করার অনুরোধ জানান অনেকে। রাষ্ট্রদূত আবিদা ইসলাম বিষয়টির গুরুত্ব অনুধাবন করে এ ধরনের একটি কার্যক্রম শুরুর পদক্ষেপ নেন। রবিবার আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করে বাংলাদেশী ইপিএস কর্মীদের জন্য অনলাইনে বি.এ. পাস কোর্স কার্যক্রম।

এ উপলক্ষ্যে পররাষ্ট্র মন্ত্রী ড. এ. কে. আব্দুল মোমেন এম. পি. ভিডিও বার্তায় দূতাবাসের উদ্যোগকে প্রসংশনীয় উল্লেখ করে বলেন,উচ্চ শিক্ষা তাদের দক্ষতার উন্নয়নে সহায়ক ভুমিকা পালন করতে পারে। এর ফলে কর্মীরা দুই দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে আরো অবদান রাখতে পারবে।  তিনি সকল শ্রেণীর ইপিএস কর্মী ও শিক্ষার্থীদের যত দ্রুত সম্ভব দক্ষিণ কোরিয়ায় ফিরে যাওয়ার বিষয়ে এবং দক্ষ কর্মী গঠনে বাংলাদেশে একটি কারিগরী প্রশিক্ষণ কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করার বিষয়ে আলোকপাত করেন। দক্ষিণ কোরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রীর সাথে ফোনালাপে বিষয়টির গুরুত্ব তলে ধরেন বলে তিনি জানান।
অপরদিকে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী ইমরান আহমদ, এম.পি, লিখিত শুভেচ্ছা বার্তায় দূতাবাসের এ কার্যক্রমের ফলে কোরিয়ায় কর্মীরা উচ্চ শিক্ষা গ্রহনের মাধ্যমে দেশে রেমিট্যান্স বাড়ানোর ক্ষেত্রে অবদান রাখবে বলে উল্লেখ করেন। একই সাথে তিনি আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে বাংলাদেশের শ্রমবাজার টিকিয়ে রাখতে কর্মীদের দক্ষতা বৃদ্ধির উপর গুরুত্বারোপ করেন।  উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, ডীন, রেজিস্ট্রার ও অন্যান্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ ও শিক্ষক মন্ডলী এবং সিউলস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ অংশগ্রহণ করেন। উক্ত অনুষ্ঠানে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীসহ প্রায় ১০০ জন অতিথি অংশগ্রহণ করেন। উল্লেখ্য, বিদেশে অবস্থানরত বাংলাদেশী নাগরিকদের জন্লাইনে উচ্চশিক্ষা কার্যক্রম চালুকরণের এটিই প্রথম উদ্যোগ।
রাষ্ট্রদূত আবিদা ইসলাম তাঁর সূচনা বক্তব্যে বলেন যে, বাংলাদেশ সরকারের ‘সকলের জন্য মানসম্মত শিক্ষা’ নীতির আলোকে এ শিক্ষা কর্মসূচীটি চালু করা হয়েছে। তিনি বলেন, এই শিক্ষা কার্যক্রমটি মূলত তাদের জন্য যারা তাদের পড়াশোনা অসমাপ্ত রেখে শ্রম বাজারে প্রবেশ করেছেন। তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, বাংলাদেশী ইপিএস কর্মীগণ বি.এ. পাস কোর্স সম্পন্ন করার মাধ্যমে তাদের নিজস্ব দক্ষতার উন্নয়ন সাধন করতে পারবেন। তিনি এ কোর্সে অংশগ্রহনকারীদের ধন্যবাদ জানান।
বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মানীত উপাচার্য প্রফেসর ডঃ এম এ মান্নান অনলাইন ভিত্তিক শিক্ষা প্রদানে বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক গৃহিত উদ্যোগ ও কর্মসূচীর উপর বিস্তারিত আলোকপাত করেন। এছাড়া তিনি শিক্ষার্থীদেরকে এ অনলাইন কোর্স সম্পর্কিত কারিগরী ও একাডেমিক উভয় বিষয়ে মূল্যবান নির্দেশনা প্রদান করেন। বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের সামাজিক বিজ্ঞান, মানবিক ও ভাষা অনুষদের ডীন প্রফেসর ডঃ মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম অনলাইন ভিত্তিক শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনায় উক্ত অনুষদ কর্তৃক গৃহিত কার্যক্রম ও উদ্যোগসমূহ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেন এবং শিক্ষার্থীদেরকে কোর্স সম্পর্কিত বিস্তারিত নির্দেশনা প্রদান করেন।
উচ্চ শিক্ষা অর্জনের অপূর্ণ স্বপ্ন বাস্তবায়িত করবার সুযোগ প্রদানের জন্য বাংলাদেশী ইপিএস কর্মী ও এই কোর্সের শিক্ষার্থী শফিউল মওলা রাজু সকল শিক্ষার্থীর পক্ষ হতে সিউলস্থ বাংলাদেশ দূতাবাস ও বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।
আলোচনা অনুষ্ঠানের পর রাষ্ট্রদূত ও বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য যৌথভাবে বি.এ. পাস কোর্সের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। তাঁরা এ শিক্ষা কার্যক্রম সুন্দরভাবে পরিচালিত করতে সংশ্লিষ্ট সকলের ঐকান্তিক সহযোগিতা কামনা করেন। পরিশেষে, দূতাবাসের প্রথম সচিব (শ্রম) কর্তৃক ধন্যবাদ জ্ঞাপনের মধ্য দিয়ে ইপিএস কর্মীদের জন্য বি.এ. পাস কোর্সের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন অনুষ্ঠানের পরিসমাপ্তি ঘটে।###২৫.১০.২০

আপনার মতামত দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.